মাইকেল জর্ডানের নাম শোনেন নাই এরকম লোক বিরল। বাস্কেটবলের ‘ব’-ও বোঝে না কিন্তু তার ভক্ত এরকম লোকের সংখ্যাও কম নয় (যেমন আমি)। কিন্তু জেনে অবাক হবেন যে মাইকেলেরও ‘জীবন ভরা ব্যর্থতা’, তার ভাষায়, ‘আমি ক্যরিয়ারে ৯০০০ শট মিস করেছি, হেরেছি ৩০০ গেমে, ২৬ বার উইনিং শট নেয়ার জন্যে টিম আমার উপর ভরসা করেছিল কিন্তু আমি ব্যর্থ হয়েছি। আমি বার বার ব্যর্থ হয়েছি, হয়তো তাই আমি সফল হয়েছি।‘
.


১৯৭৮ সালে মাইকেল Laney High School এর ছাত্র, ভার্সিটি বাস্কেটবল টিম ঘোষনা হবে। ততদিনে সবাই তার প্রতিভার কথা জেনে গেছে, টিমে সুযোগ পাওয়ার দ্বারপ্রান্তে দাঁড়িয়ে তিনি অধীর আগ্রহে অপেক্ষা করছেন। অথচ দেখা গেল লিষ্টে তার নাম নেই, বলা হয়েছে জুনিয়র ভার্সিটি টিমে খেলে আরো পরিপক্ক হতে!

মাইকেলের প্রতিভা নিয়ে কারো সন্দেহ ছিল না কিন্তু তাকে টিমে না নেয়ার কারন ছিল ভিন্ন। ভার্সিটি টিমে তখন ১১ জন সিনিয়র এবং ৩ জন জুনিয়র প্লেয়ার ছিল যারা অলরেডি টিমের অংশ, স্পেস বাকি ছিল শুধু ১ জন জুনিয়র প্লেয়ারের, চয়েস ছিল মাইকেল জর্ডান আর তার বন্ধু লেরয় স্মিথের মধ্যে একজন। মাইকেলের হাইট যেখানে ছিল মাত্র ৫’১০“ সেখানে তার বন্ধুর হাইট ৬’৬“। আমরা সবাই জানি বাস্কেটবলে হাইট কতটা গুরুত্বপূর্ন, তাই মাইকেল সুযোগ পেলেন না!

মাইকেলের বয়স তখন মাত্র ১৫, অবিশ্বাসের চোখে লিষ্ট দেখলেন, তীব্র আঘাতে ভেঙ্গে যাওয়া বুক নিয়ে রুমে ফিরে দরজা বন্ধ করে শুধু কাদলেন, আর কাদতেই থাকলেন। এই সময় তিনি অভিমানে সিদ্ধান্ত নিয়েছিলেন যে খেলাই ছেড়ে দিবেন, পরে তার মা অনেক বুঝিয়ে তাকে ফিরিয়ে নিয়ে আসেন।


এর পরের অংশটা গুরুত্বপূর্ন। মাইকেল ফিরে আসলেন চ্যম্পিয়নের মত, জুনিয়র ভার্সিটি টিমে জয়েন করলেন আর তার ব্যর্থতা এবং হতাশাকে চরমভাবে কাজে লাগালেন সফলতার দিকে।

মানুষের মস্তিষ্ক এমনভাবে তৈরি যাতে আমরা খারাপ সময় খুব তাড়াতাড়ি ভুলে যেতে পারি, কিন্তু যারা গ্রেট তারা ব্যর্থতাকে অন্যভাবে কাজে লাগান, তারা খারাপ সময়ে হেরে যাওয়ার কষ্ট মনে করে নিজেকে পুশ করতে থাকেন আরো উপরে, আরো উপরে। মাইকেলের ভাষায়, “Whenever I was working out and got tired and figured I ought to stop, I’d close my eyes and see that list in the locker room without my name on it, and that usually got me going again.”


মাইকেলের এই গুন তাকে ভার্সিটি টিম থেকে ষ্টেট টিম তারপর NBA-র সফলতার চূড়ান্ত জায়গায় নিয়ে গেছে, অসংখ্য রেকর্ডের মালিক মাইকেল জর্ডানকে মানা হয় NBA-র ইতিহাসের সবচেয়ে decorated player হিসেবে। শুধু তাই নয়, বাস্কেটবলকে বিশ্বজুড়ে জনপ্রিয় করার কারিগর হিসেবে মাইকেল একক কৃতীত্বের দাবিদার।

মাইকেল জর্ডান champion-র সমার্থক, ব্যর্থতা থেকে বের হয়ে এসে সফল কীভাবে হতে হয় তার অনন্য উদাহরন।