কিছু দিন আগে পরিচিত এক ভাই ফেসবুকে ইনবক্স করেছেনে। উনার ভাষ্য হলো কানাডার কেন্দ্রীয় সরকার আর স্থানীয় সরকার যে সকল পেশার জন্য স্কিল ওয়ার্কার খুঁজছে তা উনার সাথে কোনটাই পুরোপুরি মিলছে না! গুটি কয়েক পেশা ইনিয়ে বিনিয়ে মেলানো যায় তবে সেটাও খুব সহজ নয়।

 

ভাই, মুশকিল আহসানের দাওয়া চাইলেন!

মুহতারামে হাজিরিন, কেন্দ্রীয় (ফেডারেল) বা স্থানীয় (প্রভিন্সিয়াল) সরকার আপনার পেশার সাথে তাদের অফার করা পেশা মিলে কিনা তা পুঙ্খানুপুঙ্খও ভাবে খুঁটিয়ে দেখবে। জেনে রাখুন, গড়ে কুঁড়ি শতাংশ আবেদন শুধু মাত্র এনওসি (ন্যাশনাল অকুপেশন ক্লাসিফিকেশন) মিস ম্যাচের কারণে বাতিল হয়ে যায়!

তাহলে?

ইমিগ্রেশন এই ধাপ অত্যন্ত জটিল, কিন্তু গুরুত্বপূর্ণ! বাংলাদেশের বেশীরভাগ পেশাজীবি এনওসি মিলাতে হিমশিম খেয়ে থাকেন। পরিচিত অনেক বন্ধু বান্ধবকে চিনি যারা এই ধাপের প্যারা সহ্য করতে না পেরে কানাডা মাইগ্রেশনের ইচ্ছায় ইস্তফা দিয়েছে।

সে না হয় বুঝলাম, কিন্তু মুশকিল আহসান কেমনে হবে ভ্রাতা?

 

হুম, আসেন প্রেক্ষাপট আগে বুঝার চেষ্টা করি। ধরা যাক আপনি একজন ব্যাংকার, কাজ শুরু করেছেন ক্যাশিয়ার হিসাবে, প্রমোশন পেয়ে ব্রাঞ্চ ব্যাংকিং এর আদ্দ্যপাদ্য নিয়ে কাজ করেছেন আরো কিছু দিন। আপনার পারফারমেন্সের কারণে অফিস আপনাকে প্রমোশন দিয়ে ক্রেডিট কার্ড ডিপার্টমেন্টের দায়িত্ব দিলো। আপনি তুখোর পেলেয়ার, ক্রেডিট কার্ড সেল করে তামা তামা করে ফেলসেন, বস মেলা খুশি আর আপনাকে প্রমোশন দিয়ে অডিট ডিপার্টমেন্টে পাঠাই দিলো। ভালো কথা, জীবনের এই মুহুর্তে এসে আপনার মনে হলো বেশতো দেখলাম, এবার নিজের পরিচিত গণ্ডির বাইরে চ্যালেঞ্জ নিয়ে দেখা যাক। সিদ্ধান্ত নিলেন আপনি কানাডায় পাড়ি জমাবেন। কিন্তু কোনো ভাবেই এনওসি মেলাতে পারছেন।

কিন্তু গড়বড়টা কোথায় ভাগনে?

মুহতারামে হাজিরিন, আমাদের দেশে ভার্সাটাইল এক্সপেরিইয়েন্সের বড়ই ডিমান্ড। কিন্তু এক মুল্লুকে ওরা স্পেশালিস্ট চায়। ধরুন সেলস মানে সেলস, অডিটর মানে অডিটর, ডাক্তার মানে ডাক্তার, নো হাঙ্কি পাঙ্কি!

আপনার হয়ত ১০ বছরের অভিগ্যতা আছে ব্যংকিং লাইনে। কিন্তু উস্তাদরা খুঁজছে এমন একজন যার ইনভেস্টমেন্ট অভিগ্যতা আছে! ১০ বছরের মধ্যে আপনি ইনভেস্টমেন্ট নিয়ে কাজ করেছেন মাত্র ৩ বছর তাই কাগজে কলমে আপনি শুধু ৩ বছরের পয়েন্টই পাবেন! আর বেশীরভাগ এপ্লিকেশন বাতিল হবার তা অন্যতম কারণ।

 

উহু, পরিত্রাণ!

সমাধান আছে বৈকি! কি খাওয়াবেন বলেন 

আমি খুব সহজ একটা কেস স্টাডি দিচ্ছি। নিজ দায়িত্বে নিজ নিজ প্রফেশনের সাথে মিলিয়ে নিবেন। ধরুন, আপনি সেলস ডিসিপ্লিনে এপ্লাই করবেন। আমার দশ বছরের মধ্যে প্রথম ৩ বছর আপনি কাজ করেছেন কল সেন্টারে, পরবর্তি ৪ বছর প্রোডাক্ট ম্যানেজার আর শেষের ৩ বছর পিওর ব্যাংকিং সেলস! এবার আপনাকে প্রথম ৭ বছরের অভিগ্যতা এমন ভাবে সাজাতে হবে যাতে তা সেলসের সাথে সামঞ্জ্যষ্যপূর্ণ হয়।

 

কিন্তু কিভাবে?

মুহতারামে হাজিরিন, আর যাই করেন মিছা কতা কইয়েন না। আমি উপায় বাতলে দিচ্ছি, শুধু নিজ দায়িত্বে গুছিয়ে নিবেন। আপনি প্রথম তিন বছর কাজ করেছেন কল সেন্টারে, ভালো কথা। কিন্তু এই অভিগ্যতাকে আপনাকে টেনে টুনে সেলসের দিকে নিয়ে যেতে হবে। যেমন আপনি বলতে পারেন আপনি কাস্টমারের অভিযোগ সমাধান করার পাশাপাশি আপ সেল করেছেন। কাস্টমারকে ভুজুং ভাজুং দিয়ে ক্রেডিট কার্ড সেল করেছেন। পাশাপাশি বিভিন্ন প্রোমোশনাল অফার, পেইড সার্ভিস কাস্টমারকে গছিয়ে দিয়েছেন ইত্যাদি ইত্যাদি। যেহেতু আপনি সেলস ডিসিপ্লিনে এপ্লাই করবেন তাই কানাডার অফিসিয়াল এনওসি পোর্টাল থেকে দেখে নিবেন সেলসে কি ধরনের জব ডেসক্রিপশন ওয়লা লোক খুঁজছে। লাইন বাই লাইন পরে এবার আপনি আপনার অভিগ্যতা তার সাথে ম্যাপ করবেন যেভাবে কল সেন্টারের অভিগ্যতা একটু আগেই সেলসের মত করে আমরা লিখতে শিখলাম। পরবর্তি তিন বছর কাজ করেছেন প্রোডাক্ট ম্যানেজার হিসাবে? কুল, আপনি বড় বড় কর্পোরেটদের জন্য কাস্টমাইজড প্রোডাক্ট (ধরুন ক্রেডিট কার্ড) ডিজাইন করেছেন। আদতে এটাতো সেলসের জন্যই করা রাইট? প্রোডাক্ট ডিজানের সেলস পার্টটুকু শুধু হাইলাইট করবেন। এভাবে আপনার বেলাইনের অভিগ্যতা লাইনে আনতে হবে। অধৈর্য্য হয়েছেন তো মরসেন, স্পেন্ড ইনাফ টাইম টু মেইক ইওর এক্সপেরিয়েন্স সার্টিফিকেট। ইট উইল পেইড অফ ইভেনচুয়লি!

 

 

ভালো কথা সে না হয় করলাম? কিন্তু ভাউ কানাডা যাইতা কত টাকা লাগে?

হুম, সেটাও এক বড় জটিলতা। কানাডায় এপ্লাই করতে হলে আপনার ফ্যামিলির সাইজের উপর ভিত্তি করে একটা নির্দিষ্ট পরিমাণ টাকা আপনার বা আপনার স্ত্রীর অথবা জয়েন্ট একাউন্টে নুন্যতম তিন মাস থাকতে হবে। এক দিন কম হলেও ইমিগ্রেশন তা এলাও করেনা। রিসাইকেলবিনে আপনার এপ্লিকেশন চলে যাবে।

ভাই, দুঃখের কতা আর কি কমু  শেয়ার বাজারে লগ্নি করে আমি এখন নিঃস্ব!

হুম, আসেন চিপা বুদ্ধি শিখাই দেই।

ক্যাশ টাকা যা ম্যানেজ করতে পারেন ভালো। আপনি চাইলে আপনার অফিসে যে প্রভিডেন্ট ফান্ড, গ্রেচুইটি জমা হচ্ছে সেই টাকাও দেখাতে পারবেন! মানে আপনি চাকরি ছেড়ে দিলে তো সেই টাকা আপনি পাচ্ছেনই! সঞ্চয় পত্রও দেখাতে পারবেন। সোনা গয়না যা আছে সেটার মূল্য দেখাতে পারবেন না।

ওহ আরো একটা উপায় আছে  , আগেই ডিসক্লেইমার দিয়ে দেই যৌতুক নেয়া ও দেয়া সমান অপরাধ!

ইয়ে মানে আমি কিছু মানুষের কেস স্টাডি শেয়ার করতে পারি। আমি অনেককে চিনি যাদের শ্বশুর শাশুড়ি এ ক্ষেত্রে সহযোগীতা করতে এগিয়ে এসেছেন। ধরুন আপনার লাখ পাঁচেক টাকা শর্ট আছে, আপনার শ্বশুর তার মেয়েকে (আপনার বউ) পাঁচ লাখ টাকা গিফট করতে চাচ্ছে। যথাযত নিয়ম মেনে একটা গিফট ডিড করে টাকা আপনার বউ এর একাউন্টে চলে আসলে সেই টাকাও দেখাতে পারবেন! তবে আপনার শুশুর আব্বার ব্যাংক একাউন্টের ডিটেইল প্লাস ট্যাক্স রিটার্নের কপি চাহিবা মাত্রি দিতে বাধ্য থাকিতে হইবে!

 

আর যদি লোন নিয়ে দেখাই?

কবি নিরব ভাউ, ইহা অনৈতিক! আর কিছু বলতে পারবো না, নিজ দায়িত্বে বুঝে নেন!

আর যদি নীলক্ষেত থেকে চাকুরীর লেটার কিংবা ব্যংকের স্টেটমেন্ট বানাই নেই?

হুর মিয়া, দুই নাম্বারি কিছু করবেন না, আল্লাহর দোহাই লাগে।

আমি কয়েকজনকে চিনি যারা নিজের কাজের অভিগ্যতা না দেখিয়ে ম্যানেজ করে শ্বশুর বা আত্নীইয়ের অফিস থেকে এক্সপেরিয়েন্স লেটার ম্যানেজ করে দিব্বি কানাডা চলে আসছে। কিন্তু আমি এমন কিছু মানুষকে চিনি যারা এই আকাম করতে গিয়া ১০ বছরের জন্য কানাডায় ব্যান হয়ে গিয়েছে! আর একবার ইমিগ্রেশন ফ্রডে ধরা পরলে উন্নত বিশ্ব আপনার জন্য ধরাছোয়ার বাইরে থেকে যাবে! বড় বড় কর্পোরেট অফিসের ক্ষেত্রে রেন্ডমলি সিকিউরিটি চেক হলেও ছোট অর্গানাইজেশনের জন্য হরহামেশাই সিকিউরিটি চেক হয়।

ধুর মিয়া ওরা কি বাংলাদেশে আইসা চেক করবো? কানাডা থেকে বাংলাদেশে আসার পেলেনের ভাড়া যানেন?

মুহতারামে হাজিরিন, বাংলাদেশে সিকিউরিটি চেকের জন্য লোকাল এজেন্ট আছে। ওরাই আপনার অফিসে এসে বা ফোনে কথা বলে বা যেমনে পারে তেমনে আপনার চৌদ্দগুষ্টির খবর বের করবে।

 

 

অতি চালাকের গলায় দড়ি?

উস্তাদ যারা চালাকি করে পার হয়ে গেসে?

মিয়া ভাই, এরাও রেহাই পাবে না। কথায় আছে না, পাপ কখনো বাপরে ছাড়ে না! কানাডা আইসা চাকরী করতে হবে না? সারভাইভিং জব যেমন ধরুন ওয়ালমার্ট, ম্যাক ডোনাল্ড বা কেএফসিতে চাকুরী করবেন? আপনার সিকিউরিটি চেক কমপ্লিট না হলে আপনি জয়েন করতে পারবেন না। কানাডার দারোয়ানের চাকুরী করতে হলেও কোম্পানী আপনার সিকিউরিটি চেক করবে। 
আর যদি মূল ধারার অফিসে আপনার চাকুরী হয় তবে এক্সটেন্সিভ সিকিউরিটি চেক হবে। যেমন বাংলাদেশে আপনার বিশ্ববিদ্যালয়ে তালাশ লাগাবে আপনার সার্টিফিকেট আসল না জাল, কাজের অভিগ্যতা আসল নাকি ফেক, আপনার পূর্বের সকল এমপ্লয়ারেরে সাথে যোগাযোগ করবে, বাংলদেশের পুলিশ ক্লিয়ারেন্স ওরা করবে। শুধু কি তাই? আপনি যদি নূন্যতম ৬ মাস বাংলাদেশ ছাড়া অন্য দেশে একটানা থাকেন তাহলে সেই দেশের পুলিশ ক্লিয়ারেন্সও ওরা করাবে। গড়ে এক মাস লাগলেও ক্ষেত্র বিশেষে তিন মাসও লাগতে পারে। আর যদি ব্যাংকের মতো সেন্সেটিভ ইন্ডাস্ট্রি হয় তাইলে এতো এতো চেক হবে যে আপনার এরেঞ্জ ম্যারেজেও আমি শিওর ভাবিদের পক্ষ থেকে এতো চেক করে নাই।

 

আর হ্যাঁ! কানাডা মানেই চক চকে ঝক ঝকে না! দূর থেকে দেখলে নদীর ওপার সবসময়ই সুন্দর মনে হয়। দেশে থাকতে মাঝে মধ্যেই পত্রিকায় পরতাম ডাক্তার নাকি পেটে কাঁচি রেখেই রোগীর পেট সেলাই করে দিসে!

চিন্তা করেন কতবড় হতচ্ছাড়া ডাক্তার?

মুহতারামে হাজিরিন, কিছুদিন আগে কানাডার মন্ট্রিয়ালের এক ডাক্তার সেইম কাজ করেছে। ক্যান্সারের রোগী, হালারপুত অপারেশন করে ৩৩ ইঞ্চি মেটাল প্লেট পেটের ভিতরে রেখে সেলাই করে দিসে।

 

কানাডা অবশ্যই অপরচুনিটির দেশ কিন্তু বেহেশত না!

জয় বাংলা!

(আমার নিজের কোনো ভিসা প্রসেসিং এজেন্সি নাই, আমি কোনো ভিসা প্রসেসিং এজেন্সির সাথে জড়িত না, দয়া করে এই ধরনের প্রশ্ন ইনবক্সে করে বিব্রত করবেন না, আমার লেখা ওপেন সোর্স, সাধারণের উপকারের জন্য নিজের সময় ব্যয় করে লেখা, আপনাদের ইমিগ্রেশন যাত্রা শুভ হোক, আজকের জন্য ওভার এন্ড আউট)

 

কানাডা মাইগ্রেশনের সুযোগ, প্রিপারেশন, প্রসেসিং । পর্ব ০১

পর্ব ০২ঃ কানাডায় সুযোগ সুবিধা?

পর্ব ০৩ঃ কানাডায় চাকুরী সমাচার?

পর্ব ০৪ঃ কানাডার লাইফ স্টাইল আর খরচাপাতি?

পর্ব ০৫ ঃ কানাডায় ওয়ার্ক পারমিট ভিসা?