প্রায় বছর পাঁচেক সময় ধরে ঢাকা শহরের নামকরা একটা কোচিংয়ে জিম্যাটের ম্যাথস পড়িয়েছি। এর বাইরেও অনেকের অনুরোধে আইবিএ অ্যাডমিশন টেস্টের জন্য পড়াতাম একসময়। এই দুইটা বিষয়ে পড়াতে গিয়ে সবসময়ই যে জিনিসটা খেয়াল করতাম সেটা হচ্ছে, এসব ক্ষেত্রে বেশীর ভাগ শিক্ষার্থীরই গণিত অংশে ভালো না করার একটা বড় কারণ গণিতের সমস্যাগুলোতে থাকা ইংরেজী না বুঝতে পারা। বেশীরভাগ পরীক্ষার্থীই গণিতের সমস্যাগুলো এমনকি কয়েকবার করে পড়েও বুঝতে পারেনা আসলে ওই গাণিতিক সমস্যাটিতে আসলে কি চাওয়া হয়েছে! এটা বুঝতে পারলে হয়তো সে সমস্যাটির সমাধান করতে পারতো।

 

এ ধরণের সমস্যার সবথেকে বড় কারণ ছোটবেলা থকেই বেশী বেশী ইংরেজী না পড়া। আমাদের দেশের ছেলেমেয়েরা সাধারণত শিশুকাল ইংরেজী লেখা অ্যাভয়েড করে চলেই অভ্যস্থ। ইংরেজী শেখার জন্য বেশীরভাগেরই চেষ্টা শুরু হয় অনেক পরে এসে, যখন তারা ভালো একটি প্রতিষ্ঠানে এমবিএ অথবা এমবিএম জাতীয় ডিগ্রি নেবার বাসনা করে, অথবা একটি ভালো জব পাবার জন্য তাদের মধ্যে আকুলতার সৃষ্টি হয়। তখন তারা দারস্থ হয় কোন একটি কোচিংয়ের। কিন্তু মাত্র তিন-চার মাসের কোচিং একটি মানুষকে কতটুকু ইংরেজী শিখাতে পারে সে বিষয়ে আমার সন্দেহ আছে! একটি ভালো কোচিং বড়জোর একজন মানুষকে কিভাবে কোন বিষয়ে ভালো করতে হবে সে রাস্তা দেখিয়ে দিতে পারে, এর থেকে বেশী পেতে হলে মানুষটার নিজেকেই সে রাস্তা ধরে হেঁটে যেতে হবে।

সাধারণত যেটা হয়, পরীক্ষার্থীরা শরণাপন্ন হন ইতোমধ্যে সফল হয়েছেন এরকম বড় ভাইদের। এক্ষেত্রে আমার এক্সপেরিয়েন্স বলে, তথাকথিত বড় ভাইয়েরা বেশীরভাগ ক্ষেত্রেই গাইডলাইন্স দেবার সময় মুখস্থ কিছু বুলি আওড়ান। তার মধ্যে সবথেকে এগিয়ে থাকবে, "আপনারা বেশী বেশী করে ডেইলি স্টারসহ বিভিন্ন ইংরেজী পত্রিকা পড়বেন। তাহলে ইংরেজী পড়ার সক্ষমতা বাড়বে, লেখার সক্ষমতা বাড়বে এবং ভোকাব্যুলারি স্টক ভালো হবে!" আমার এখনও মনে আছে, আইবিএ'র একজন খুব ডাকসাইটে শিক্ষক ক্লাসের মধ্যে বাংলাদেশী পত্রিকা পড়ে ইংরেজী শেখার কথা শুনে অট্টহাসি দিয়ে বলেছিলেন, "ডেইলি স্টারের প্রায় প্রতি লাইনে ভুল গ্রামার পাওয়া যায়। ওইটা পড়ে আবার কেউ ইংরেজী শেখে নাকি!"


কথাটা কিন্তু হাড়ে হাড়ে সত্যি। তাই বলে বলছিনা সব ইংরেজী পত্রিকাতেই ভুল গ্রামার ইউজ করা হয়। ডেইলি স্টারেরই কিছু ফিচারড পেইজ আছে (যেমন, রাইজিং স্টার) যেগুলোতে অসাম ইংরেজী লেখা হয়। তবে আমার পরামর্শ হচ্ছে, ইংরেজীতে ভালো করার জন্য এদেশের নিউজপেপার না পড়ে বাইরের টা পড়েন। ইন্টারনেটে এখন সবকিছুই বিলকুল ফ্রি তে পড়া যায়। ইকোনমিস্টের আর্টিকেলগুলো পড়েন, টাইমস পড়েন, হাফিংটন পোস্ট পড়েন। যেসব বিষয়ে আপনার আগ্রহ আছে সেসব বিষয়ে লেখা আর্টিকেলগুলো পড়েন। বিরক্তি আসবেনা। আপনি যদি খেলাধুলার ভক্ত হন তাহলে ইএসপিএন পড়েন, ইনসাইড স্পোর্টস পড়েন। আপনি যদি টেকনোলজি'র ভক্ত হন তাহলে টেকরাডার পড়েন, বিবিসি ফোকাস পড়েন, পপুলার সায়েন্স পড়েন। নীলক্ষেত থেকে ২০-৩০ টাকা দিয়ে কিনে পুরাতন রিডার্স ডাইজেস্ট ও পড়তে পারেন।


তবে ইংরেজী সংবাদপত্র পড়ে ভোকাব্যুলারি বাড়ানোর চেষ্টা করা একটা নিখাদ মূর্খতা ছাড়া কিছুই না। আইবিএ অ্যাডমিশন টেস্ট, ব্যাংক জব এক্সাম, জিম্যাট যেটাই বলেন, সব এক্সামেই আসলে ডেইলি নিউজপেপার থেকে ভোকাব্যুলারি কমন পাবার সম্ভাবনা খুব কম। এক্ষত্রে বরং ইকোনমিস্ট, বিজনেস টাইমস অথবা ন্যাশনাল জিওগ্রাফিক টাইপের ম্যাগাজিনগুলো আপনার জন্য অনেক উপকারী হবে।

একটা খুব বড় ব্যাপার কিন্তু এড়িয়ে গেলে চলবেনা। উপরের ম্যাগাজিনগুলো যে পড়বেন, সেটার জন্যও কিন্তু কিছু বেসিক থাকা জরুরী। ভালোভাবে ইংরেজী পড়তে এবং লিখতে পারার জন্য ইংরেজী গ্রামারের যে অংশে সবথেকে ভালো দখল থাকা দরকার সেটা হচ্ছে Clause। অথচ প্রায় সবগুলো কোচিং ই এই অংশটা খুব সযতনে এড়িয়ে যায়। বড়জোর একটা বা দুইটা ক্লাস রাখে অনেকে। সত্যি কথাটা হচ্ছে, একটা বা দুইটা ক্লাসে আপনি কখনোই খুব ভালোভাবে Clause ( Reduced Clause সহ) শিখতে পারবেন না। অথচ এটা ভালোভাবে শেখার উপরেই কিন্তু ইংরেজীর দুইটা (স্পিকিং ধরলে ৩ টা) মেজর সেকশনের উপরে আপনার ভালো দখল হবে কিনা তা নির্ভর করছে! সুতরাং, এর পরে যে কোন কোচিংয়ে ইংরেজী পড়তে গিয়ে নিজে থেকেই ইন্সট্রাকটরকে বলতে ভুলবেন না যে, "ভাইয়া/আপু, আমাদেরকে ভালো করে Clause শেখান আগে!"

 

মনে রাখবেন, অংকে কি চেয়েছে সেটা যদি বুঝতে পারেন ঠিকমতো, তাহলে অংক অনেকটাই সহজ হয়ে যাবে!

এই বিশাল পোস্টের কথাগুলোর সাথে হয়তো অনেকেই দ্বিমত পোষণ করবেন। এটা আসলে আমার নিজস্ব মতামত। আপনার মতামত ভিন্ন হতেই পারে। ভালো থাকবেন সবাই।